শনিবার, জুন 15, 2024

রমজানে গাজায় ত্রাণ পাঠালো বাংলাদেশ

Must read

- Advertisement -

ত্রাণ পণ্যবাহী ট্রাকগুলো মিসরের উত্তর সিনাই থেকে রাফাহ সীমান্ত ক্রসিং দিয়ে গাজায় প্রবেশ করবে।  

রমজানে গাজায় ত্রাণ পাঠালো বাংলাদেশ | ত্রাণ পণ্যবাহী ট্রাকগুলো মিসরের উত্তর সিনাই থেকে রাফাহ সীমান্ত ক্রসিং দিয়ে গাজায় প্রবেশ করবে।  

পবিত্র রমজান উপলক্ষে যুদ্ধবিধ্বস্ত গাজায় খাদ্য ও চিকিৎসা সামগ্রী পাঠিয়েছে বাংলাদেশ। সোমবার (১১ মার্চ) মিসরের বিখ্যাত আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ভিত্তিক সংস্থা আল আজহার জাকাত অ্যান্ড চ্যারিটি হাউজ গাজায় ১০০টি ট্রাকে করে ২,০০০ টন ত্রাণ সামগ্রী পাঠানোর বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করে। 

এই ত্রাণ সামগ্রীর মধ্যে বাংলাদেশসহ আরও ৮টি দেশের অনুদান সবচেয়ে বেশি। অন্যান্য দেশগুলো হলো– ইন্দোনেশিয়া, ভারত, যুক্তরাজ্য, সৌদি আরব, ফ্রান্স, চীন, কানাডা এবং জার্মানি। মিসরের অনলাইন সংবাদমাধ্যম আরহাম অনলাইনকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন আল আজহার জাকাত অ্যান্ড চ্যারিটির মুখপাত্র আবদেল-আলীম কাশতা।

তিনি জানান, ত্রাণ পণ্যবাহী ট্রাকগুলো মিসরের উত্তর সিনাই থেকে রাফাহ সীমান্ত ক্রসিং দিয়ে গাজায় প্রবেশ করবে।  

আল আজহার জাকাত অ্যান্ড চ্যারিটি হাউজ এক বিবৃতিতে বলেছে, গত ৭ অক্টোবর গাজা উপত্যকায় যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত গাজায় চ্যারিটির পক্ষ থেকে ত্রাণের যত চালান গেছে, সেসবের মধ্যে এই চালানটি পঞ্চম এবং বৃহত্তম। 

কাশতা জানান, এর আগে পাঠানো চালানগুলোর মাধ্যমে ৪,০০০ টন খাদ্য ও চিকিৎসা সামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

‘সেভ গাজা’ ক্যাম্পেইনের অংশ হিসেবে ত্রাণ বহরটিতে বিশ্বের ৮০টি দেশের মানুষের অনুদান রয়েছে বলে জানানো হয় বিবৃতিতে।

মিশরসহ সারাবিশ্বে যেকোনো দেশ থেকে এই ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে দান করতে ইচ্ছুক মানুষদের সংস্থাটির ওয়েবসাইট  ভিজিট করতে বলা হয়েছে।

গাজায় যুদ্ধ শেষ না হওয়া পর্যন্ত এবং উপত্যকাটির পুনর্গঠন প্রক্রিয়া শুরু না হওয়া পর্যন্ত, সহায়তা প্রদান অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে আল আজহার জাকাত অ্যান্ড চ্যারিটি হাউজ।

- Advertisement -
- Advertisement -

More articles

- Advertisement -

Latest article